বাড়িতে – অফিসে চোখের সামনে   চেনা -অচেনা অনেকগুলো কুকুর।।

ইচ্ছেমত দৌড়োদৌড়ি , খেয়োখেয়ি   করছে ওরা ।

ঠায় দাঁড়িয়ে থেকে জানা গেল জামাইষষ্ঠীর যা কিছু বেঁচেছে , তা  নিয়েই লড়াই ।।  

অর্ণব গোস্বামী বাকিটা জেনে এসে জানাবে বললে ,

বাকিরা বললে – থাক ! 

অন্দরমহলে মোটে দুটি প্রটাগনিসট;

 ড্রায়ারের  বেস স্কেলে ঘড়ঘড়  আর ফস করে ফোড়ন দেওয়া তেলের কান্না ,

এ ছাড়া আর কোনও শব্দ নেই ।।

দেশলাইয়ের ভালোবাসা এই কিছুদিন আগে অব্ধি

মোমবাতির সাথেই ছিল,

সুখে ছিল শোনা যেত ,

এখন ধূপের সাথে পিরিত ,

ধোঁয়ায় – গন্ধে সবারই দমবন্ধ ।।

সেই গন্ধকে টেক্কা দেবে বলে বর্ষার গোলাপ যেই তৈরি হল রুজ মেখে ;

ক্যালেন্ডারে তাকিয়ে দেখলুম ছাব্বিশে বৈশাখ ,

গরমে ভেপে খসে পড়লো কাঁচামিঠে আম ।।

মোরব্বা হবে না ঝাল গোছের কিছু , এ তক্কাতক্কির মধ্যেই 

ফেরিওয়ালার দরাজ গলার হাঁক ।

আম পোড়া আমের শরবৎ নিয়ে লোকাল ট্রেন তখন পরের স্টেশনে 

পৌঁছে গেছে  প্রায় ।।

 

 

অনর্থক ১
  • 4.67 / 5 5
3 votes, 4.67 avg. rating (90% score)

Comments

comments