বাঙালির বাচ্ছা জন্মাতেই তার "ওলে ব্যাবালে"-র দল তাকে শেখায় সে রীতিমত দ্বিপদ। সেই তার সর্বনাশ এর শুরু। ক্রমে আপদ বিপদ পেরিয়ে তার চর্যাপদে পদার্পণ ক্লাস ইলেভেন এ । সিদ্ধাচার্য মহাপুরুষ লুই, ভুসুক, কাহ্ন দের অপকর্ম গম্ভীর বদনে শোনে লাস্ট বেঞ্চ। অতঃপর হা হা হি হি হো হো। এই সেই সময় যখন মাতৃভাষা প্রাক পলিটিকাল কারেক্টনেস যুগ এর নষ্টামো ও তার রক্তমাংসের শরীর মেলে ধরবে কালিঘাট এর পট এর মত। ততদিনে আমরা বল শ্রীহরি বলে ডুব মারছি স্বখাত সলিলে ও পাড়ার কোচিং ক্লাসগুলোতে।। তারপর গঙ্গা ভলগা টেমস দিয়ে বহু জল গড়িয়েছে। ওবামা নোবেল পেলো, জ্যোতি বাবু অমর হলো, রাখি সাবন্ত এর রাঙ্গা মাথায় চিরুনি উঠলো…. এবং প্রাক গ্র্যজুয়েশন পর্বে আমাদের অবচেতনে গ্রথিত হলো বাংলা ভাষার আদি-কথন –চর্যাপদ। কোনো অলৌকিক আলোর ঝলকানি দিয়ে নয়, কোনো ভীষণ মহাকাব্যের আত্মপ্রকাশে নয় , বাংলা এসেছিল সংস্কৃত, ফার্সি দের বখাটে ছেলেদের ফেলে দেওয়া রাংতা কুড়োতে কুড়োতে। তার কোচঁড়ে বৈচি ফুল ভরে, গুন গুন সহজ গান ঠোঁটে, ইতিউতি নোনা সংগ্রহে পাড়ার লোকে খবর পেলো মেয়েটি ডাগর হয়েছে , বড় হলাম আমরাও, এবং এর পরের কথা আমাদের সবার জানা। সে বড় মধ্যম রূপকথা। আমরা জীবনের যে সব সম্ভাবনায় বিশ্বাস করে বেঁচে থাকি, সেখানে বাংলা বহুদিন ব্রাত্য। অনন্ত তুষারপাত , অপূর্ব অভিমান , সলজ্জ ভালবাসায় আর ক্রৌঞ্চ নিধনের ক্রোধে আমার চিন্তা রোজ বাংলায় কথা বলে, শাহবাগ এর জনস্রোতে আপামর এর অধিকার এর দাবিতে রোজ সে পাঁচ বক্ত নামাজ পড়ে আসে বাংলা ভাষায়। কিন্তু বাংলা লেখা আমি ভুলে যাই । — সময়ের অভাব, কুন্ঠা, লজ্জা ইত্যাদি ..ইত্যাদি ..


             "এহ বাহ্য আগে কহ আর".. হক কথা। চর্যাপদ নাম এর বাংলা ব্লগ সাইট এ লেখার জন্য এতক্ষণের গৌরচন্দ্রিকা অবান্তর, আপনাদের অকারণ ধৈর্য্যের প্রতি আমাদের বিস্ময় রইলো। অতএব অপেক্ষা কিসের? চটপট কীবোর্ড হাতে নিয়ে নামিয়ে ফেলুন একটা যা-ইচ্ছে-তাই। । জেনে খুশি হবেন, ছি-পি-এম এর বিবর্তন এবং মা মাটি মামনি-র পরিবর্তন যে কোনো লেখাই সাদরে গ্রাহ্য হবে। (*শর্তাবলী প্রযোজ্য: বাংলা ফন্ট আবশ্যিক।)। মোদ্দা কথা "চর্যাপদ " এ আছে আমাদের মাতৃভাষায় প্রলাপ, বিলাপ ও আলাপ এর সুযোগ। বহুদিন বাংলায় লেখা হয়নি? অর্শ, পিত্ত, কফ, বউ এর ঝ্যাঁটা , বর এর ইগো … কারণ যাইই হোক , চর্যাপদ এ আসুন। আমরা আপনাকে উৎসাহিত করব, নিরুৎসাহিত করব …এবং মাঝে মাঝে কিছুই করব না।—- সবই বাংলায়। সুতরাং আসুন এবং বাংলায় মাতুন।


       দুচারজন বন্ধু মিলে শুরু হয়েছিল আমাদের ব্লগিং এর পথচলা। উদ্দেশ্য – নিজেদের রোজকার এলোমেলো ভাবনাচিন্তাকে একটা রূপ দিয়ে বাকিদের সঙ্গে ভাগ করে নেওয়া… ভাষা-সাহিত্য-আইডিয়া নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা, মত বিনিময়, যুক্তিতর্কের মাধ্যমে নিজেকে আরও একটু শানিয়ে নেওয়া… আর বন্ধুত্বটা দুচারজনের গণ্ডিতে সীমাবদ্ধ না রেখে আরও অনেক মানুষকে আপন করে নেওয়া। এ পথচলায় আমাদের সঙ্গী হবার জন্য আপনাদের সকলকে স্বাগত…