প্রশ্নটা এইঃ আপনি যদি দ্বীপান্তরে যান কোন একশটা বই সঙ্গে নেবেন সময় কাটাতে? ‘দেশ’পত্রিকার ২৮শে মার্চ, ১৯৭০ সংখ্যায় লিখছেন ফাদার দ্যতিয়েন এই রকমই একটা খেলার কথা। খেলাটা খেলেছিল ১৯৫০ সাল নাগাদ ফ্রান্সের এক সাহিত্য পত্রিকার পাঠকসমাজ। পড়ছিলাম ফাদারের ‘গদ্যসংগ্রহ’-এর ‘ডায়েরির ছেঁড়া পাতা’অংশটিতে। কুঁজোর হঠাৎ চিৎ হয়ে শোওয়ার শখ হল। মনে হল বাঃ খেলাটা তো বেশ। শুরু করি তো আমাদের চর্যাপদে। দেখাই যাক না কে কে আমিও খেলব বলে বায়না ধরে সোজা নেমে পড়ে মাঠে। তবে ‘আপনি আচরি ধর্ম পরেরে শিখাও’। বুক ঠুকে নেমে পড়লাম খেলতে। নিচে দিয়েছি আমার খেলার ফল। কে কে খেলবে শুরু করে দাও। তবে এই খেলার আরও একটা রাউন্ড আছে। যারা বইটা ইতিমধ্যেই পড়ে ফেলেছ,তাদের তো জানা কিন্তু কেউ কাউকে বোলো না। সাত দিন পরে দ্বিতীয় রাউন্ডের খেলার নিয়মটা বলব। আরেকটা কথা – বইগুলি কিন্তু আমার ভালো লাগার ক্রমানুসারে সাজানো নয়। আর যে সব বইগুলো খণ্ডে খণ্ডে লভ্য,তাদের একটা বই ধরতে হবে (মূল খেলায় এই নিয়মটা ছিল কিনা জানি না)। সবাইকে সতর্ক করে দিচ্ছি কেউ যেন আমায় জিজ্ঞেস না করে আমি নিচের বইগুলো পড়ে কি শিখেছি। কিচ্ছু শিখিনি (ক্রমাঙ্ক -৪২ ব্যতিক্রম,যা কিছু শিখেছি ওইটা থেকেই)। কি বললে? তাহলে কেন পড়েছি? ওই দ্বীপান্তরে যে জন্য এদের নিয়ে যাচ্ছি,মানে সময় কাটানোর জন্য। আর এই লেখাটার জন্য আমাকে মনে মনেও গালাগাল দেওয়া বা হাসাহাসি করা চলবে না।

 

১. ছড়ার ভিড় আবৃত্তির – ভবানীপ্রসাদ মজুমদার

২. ছড়াছড়ি গড়াগড়ি – ভবানীপ্রসাদ মজুমদার

৩. ভূত-পেত্নী জিন্দাবাদ – ভবানীপ্রসাদ মজুমদার

৪. মজার ছড়া – ভবানীপ্রসাদ মজুমদার

৫. যাচাই করা বাছাই ছড়া – ভবানীপ্রসাদ মজুমদার

৬. সদ্য-গড়া পদ্য-ছড়া – ভবানীপ্রসাদ মজুমদার

৭. একক দশক শতক – বিমল মিত্র

৮. এবার কার পালা – বিমল মিত্র

৯. কড়ি দিয়ে কিনলাম – বিমল মিত্র

১০. বেগম মেরী বিশ্বাস – বিমল মিত্র

১১. সাহেব বিবি গোলাম – বিমল মিত্র

১২. মাপা হাসি চাপা কান্না – সঞ্জীব চট্টোপাধ্যায়

১৩. রাখিস মা রসে বশে – সঞ্জীব চট্টোপাধ্যায়

১৪. শ্বেতপাথরের টেবিল – সঞ্জীব চট্টোপাধ্যায়

১৫. দেখি নাই ফিরে – সমরেশ বসু

১৬. প্রজাপতি – সমরেশ বসু

১৭. বিবর – সমরেশ বসু

১৮. গীতবিতান – রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

১৯. গোরা – রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

২০. ঘরে বাইরে – রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

২১. অলৌকিক জলযান – অতীন বন্দ্যোপাধ্যায়

২২. নীলকণ্ঠ পাখির খোঁজে – অতীন বন্দ্যোপাধ্যায়

২৩. খুদ্দুর যাত্রা – অবনীন্দ্রনাথ ঠাকুর

২৪. রাজকাহিনী – অবনীন্দ্রনাথ ঠাকুর

২৫. ভারতের মুক্তিসংগ্রামে চরমপন্থী পর্ব –অমলেশ ত্রিপাঠি

২৬. স্বাধীনতা সংগ্রামে ভারতের জাতীয় কংগ্রেসের ভূমিকা – অমলেশ ত্রিপাঠি

২৭. পণ্যভূমে পুনশ্চ – কালকূট

২৮. পণ্যভূমে পুন্যস্নান – কালকূট

২৯. টেনিদা সমগ্র – নারায়ন গঙ্গোপাধ্যায়

৩০. সুনন্দর জার্নাল – নারায়ন গঙ্গোপাধ্যায়

৩১. কেয়াবাত মেয়ে – শ্রীপান্থ

৩২. বটতলা – শ্রীপান্থ

৩৩. ফেলুদা সমগ্র – সত্যজিৎ রায়

৩৪. যখন ছোটো ছিলাম – সত্যজিৎ রায়

৩৫. সম্পাদকের বৈঠকে – সাগরময় ঘোষ

৩৬. হীরের নাকছাবি – সাগরময় ঘোষ

৩৭. আবোল তাবোল – সুকুমার রায়

৩৮. হ য ব র ল – সুকুমার রায়

৩৯. গভীর নির্জন পথে – সুধীর চক্রবর্তী

৪০. ব্রাত্য লোকায়ত লালন – সুধীর চক্রবর্তী

৪১. দুই মুখ – অনিভা মুখার্জি

৪২. বাংলা স্ল্যাং সমীক্ষা ও অভিধান – অভ্র বসু

৪৩. সটীক হুতোম প্যাঁচার নকশা – অরুন নাগ

৪৪. উৎপল দত্ত জীবন ও সৃষ্টি – অরূপ মুখোপাধ্যায়

৪৫. আপিলা চাপিলা – অশোক মিত্র

৪৬. মুক্তমনের সংকট – আব্দুর রউফ

৪৭. নির্বাসিতের আত্মকথা – উপেন্দ্রনাথ বন্দ্যোপাধ্যায়

৪৮. বাবার কথা – উমা দেবী

৪৯. পথের কবি – কিশলয় ঠাকুর

৫০. মহাভারত – কালীপ্রসন্ন সিংহ

৫১. ঠাকুরবাড়ির অন্দরমহল – চিত্রা দেব

৫২. নির্বাপিত সূর্যের সাধনা – জ্যোতিপ্রকাশ চট্টোপাধ্যায়

৫৩. তরুর শ্বশুরবাড়ি – জ্যোৎস্না দেবী

৫৪. বাঙালনামা – তপন রায়চৌধুরী

৫৫. ত্রৈলোক্য রচনাবলী – ত্রৈলোক্যনাথ মুখোপাধ্যায়

৫৬. ঠাকুরমার ঝুলি – দক্ষিণারঞ্জন মিত্র মজুমদার

৫৭. হাতির বই – ধৃতিকান্ত লাহিড়ী চৌধুরী

৫৮. হারবার্ট – নবারুণ ভট্টাচার্য

৫৯. দাদাঠাকুর – নলিনীরঞ্জন সরকার

৬০. মহাভারতের ছয় প্রবীন – নৃসিংহপ্রসাদ ভাদুড়ী

৬১. পরশুরাম গ্রন্থাবলী – পরশুরাম

৬২. ছেলেবেলার দিনগুলি – পুণ্যলতা চক্রবর্তী

৬৩. কি করে কলকাতা হলো –পূর্ণেন্দু পত্রী

৬৪. কবি ও কর্মী রবীন্দ্রনাথ ও কালীমোহন ঘোষ– পূর্ণানন্দ চট্টোপাধ্যায়

৬৫. মহাভারতের মহারণ্যে – প্রতিভা বসু

৬৬. নয় বোনের বাড়ি – প্রতিমা ঘোষ

৬৭. কৃতীজনের সান্নিধ্যে – প্রসূন বসু

৬৮. গদ্যসংগ্রহ – ফাদার দ্যতিয়েন

৬৯. রোকেয়া রচনা সংগ্রহ – বেগম রোকেয়া

৭০. আলো আঁধারি – বেবী হালদার

৭১. শ্রীশ্রী সারদা দেবী – ব্রহ্মচারী অক্ষয়চৈতন্য

৭২. ছলনার আট-পা এবং অন্যান্য – যুধাজিৎ দাশগুপ্ত

৭৩. বাংলার ডাকাত – যোগেন্দ্রনাথ গুপ্ত

৭৪. পুরাতনী – রামকুমার চট্টোপাধ্যায়

৭৫. ব্রজদার গুল্প সমগ্র – রূপদর্শী

৭৬. এ আমির আবরণ – শঙ্খ ঘোষ

৭৭. ব্যোমকেশ সমগ্র – শরদিন্দু বন্দ্যোপাধ্যায়

৭৮. চৌরঙ্গী – শংকর

৭৯. হস্তান্তর – শংকর ঘোষ

৮০. কারাকাহিনী – শ্রী অরবিন্দ

৮১. প্রবাদ-রত্নাকর – সত্যরঞ্জন সেন

৮২. সুখলতা রাও রচনাসংগ্রহ – সুখলতা রাও

৮৩. আন্টার্কটিকা – সুদীপ্তা সেনগুপ্ত

৮৪. বহুরূপী রবীন্দ্রনাথ – সুধীর চন্দ

৮৫. পত্রাবলী – স্বামী বিবেকানন্দ

৮৬. শ্রীশ্রীরামকৃষ্ণ লীলাপ্রসঙ্গ – স্বামী সারদানন্দ

৮৭. হিন্দুস্থানী উপকথা – শান্তা দেবী ও সীতা দেবী

৮৮. Freedom at Midnight – Larry Collins & Dominique Lapierre

৮৯. উপোসি বাংলা সাময়িক পত্রে পঞ্চাশের মন্বন্তর – সম্পাদক কাশীনাথ চট্টোপাধ্যায়

৯০. অদ্ভুত যত ভূতের গল্প – সম্পাদক গৌরাঙ্গপ্রসাদ বসু

৯১. পশ্চিমবঙ্গের কথ্যভাষা – সম্পাদক তাপস ভৌমিক

৯২. শিরোনাম শিবরাম – সম্পাদক তাপস ভৌমিক

৯৩. সেরা সন্দেশ – সম্পাদক সত্যজিৎ রায়

৯৪. যত কান্ড ম্যাও মিউ – সম্পাদক সিদ্ধার্থ ঘোষ

৯৫. দেশভাগ স্মৃতি ও স্তব্ধতা – সম্পাদিকা সেমন্তী ঘোষ

৯৬. ধন্য বাগবাজার – সম্পাদক স্বামী পূর্নাত্মানন্দ

৯৭. মহিমা তব উদ্ভাসিত – সম্পাদিকা প্রব্রাজিকা বেদান্তপ্রাণা

৯৮. মরিচঝাঁপি ছিন্ন দেশ, ছিন্ন ইতিহাস – সম্পাদক মধুময় পাল

৯৯. স্বামী রঙ্গনাথানন্দ জীবন ও ব্রত – যুগ্মসম্পাদক স্বরাজ মজুমদার ও মনিকা সেনগুপ্ত

১০০. স্বামী বিবেকানন্দ স্মারক গ্রন্থ – যুগ্মসম্পাদক স্বামী সদাত্মানন্দ ও স্বামী প্রজ্ঞানানন্দ

 

অধিকাংশ বই হয়ত একেবারেই অকিঞ্চিৎকর, কিন্তু হাতে নতুন বই না থাকলে এইগুলোই ঘুরিয়ে ফিরিয়ে পড়তে আমার ভাল লাগে। সেই জন্যেই এই নামগুলি লিখলাম।

একটি খেলা
  • 3.00 / 5 5
1 vote, 3.00 avg. rating (71% score)

Comments

comments