ঘর মিশে গেলো সমতলে, ধস নেমেছে ওপারে
হীরা-জহরত,এসব পুরনো ; নতুন ষ্টেশনারী হাঁক ছাড়ে
অকস্মাৎ ঝড় উঠে, কার হৃদয় ভাঙ্গে, কারো দেয়াল
সমস্তই আঘাত ; শ্বাপদ থেকে শিরা, অনাহুত ধাক্কার সামাল

স্টেশন থেকে দূরে, বন্দীশিবিরে মৃদু কোলাহল
এখন তো শ্রাবণ নয়, তবুও চোখে এক আঁজলা জল
হন্য হয়ে দৌড়োয়, উঁচু গলায় অবুঝ উভচর প্রাণী
কে হলো সিলিংে শহীদ ; করবী আর কবর; একই সরণী

ঢেউ খুব বেশি ; ঝড় থেকে জল শুষে মৃত্যুহীন সমুদ্র
গহীন তো পেয়ালা নয়, কাছ থেকে জীবন ক্ষুদ্র
প্রহসন থেকে ট্র্যাজেডি, আমরা সবাই নিজেই অভিনেতা প্রিয়
যার মাস্তুল ভূমিধসে চাপা, তাকেও শোক পালনের অবকাশ দিও //১

অতীত থেকে বাসস্টপেজ, আর ছাউনি উত্তাপ সামলে
একটু বিশ্রাম নেয় গোধূলি লগ্নে, রোদ পড়লে
সুতো ঘেরা সীমানা, দখলদার এর হানা পায় রোজ
সস্তায় ট্রামলাইনে, চর্ব্য লেহ্য ;এটাই বিচিত্র গণভোজ

নল খাগড়া থেকে ঝুড়ি ; আদিপর্ব এখন সবার মুখস্থ
প্রেম, অপ্রেমিক দের প্রিয় ; সতর্কবার্তা শুরুতে প্রযোজ্য
মাঝখান থেকে একটু সরে, বন্ধুর পথে
এখন একটু পৃথিবী চড়ুক, চারাগাছ নাহলে অশ্বত্থে

প্রবাস থেকে দূরবর্তী শিকারী দল, হামলা করে
অনশন এখন চোখে, জল তো ফোয়ারায় ধরে
শিখর থেকে সংগ্রামী ;প্রাক্তনের ধোঁয়াটে চোখে ভীষণ জ্বালা
নিশ্চুপ মনে প্রশ্ন করি, বৃষ্টির আশায় মেঘ পেরুলাম ক'তলা//২

এবার থমকে পৃথিবী, জমানো সব আবেগ নথিবদ্ধ
হিসেব থেকেছে তোলা ; কবে, দেওয়া কথা এখন অতীতেই রুদ্ধ
জল যেমন ঝড়ে, ঝর্ণা আর মহিমার ক্লেশে
কত টা অনিয়ম হয়েছে, দূরত্বে আর উপনিবেশে

মন জোড়া দেওয়া হয় ;এখানে অন্ধকারে
জানালার চোখ দিয়ে, চাঁদ চুমু আঁকে রিক্ত আদরে
পথ বলেছে এখন আর ধর্মঘট হচ্ছে না; প্রেমিকার তুলনায়
ভালোবাসা দের খুব ভীড়, রাস্তায় খালি হাতে দাঁড়ানো দায়

দ্বীপ থেকে দূরে, মহীসোপানে ভাসে জ্যন্ত মৃতদেহ
এখানকার ক্ষুধার্ত নুন ;বোতলে, গ্লাসে অভিমান দূর্বিষহ
আর সান্দ্র তরল, ধীরে ধীরে গড়ায় ধমনীতে
কেহ দেখে না, ডাকেও না;পরিস্রুত জীবনের ছবিতে//৩

চল্লিশতম ভ্যালেন্টাইন‘স ; তুমি দিয়েছিলে ক‘টা ছেঁড়া সুতো উপহার
এটা কিছুই না, তুমি দেখতে চাইলে উষ্কখুষ্ক অনুগত ব্যবহার
দেখা হবার ছুতো নিস্প্হ,পরিবেশ পাল্টেছে চেহারার বিক্রিতে
এমনি হয়তো আমরা ভাঙবো সাদা-কালোয়; নির্দ্বিধায় মূলজ পাথরকুচিতে

বিষম এখন উল্লাস ; স্থুল রীতিনীতির সামাজিক ভীড়
প্রেম, অপ্রেম, তস্করবৃত্তি ; এই সভ্য নদের সুচারু তীর
বলবে বলো? আঘাত থেকে নিও নিংড়ে ছলনা
এহেন দৃষ্টিতে, মানুষ-মানুষী খেলা ; চাঁদ-তারা অন্তরঙ্গ, মধ্যরাত নিষ্ঠুর না

মনে রেখো, এই মুনাফা পথে হবে বিনষ্ট ;অনন্তের কুর্নিশে
ভাঙ্গা কেবিন থেকে জ্যান্ত হাওয়া খসে ;টেবিল তৃষ্ণার্ত নিমেষে
উচু নিচু ঢালু পথে, আমার খুঁজে বিনষ্ট তোমার অবিন্যস্ত রঙ্গিন ঢেউ
ধন্যবাদ প্রেমিকা ;তোমার দেওয়া ক্ষতের খবর জানবে না কেউ//৪

কথোপকথন-২
  • 0.00 / 5 5
0 votes, 0.00 avg. rating (0% score)

Comments

comments