এই পর্বে লিখছেন শুভঙ্কর দাস। সফটওয়্যার এঞ্জিনিয়ার, বর্তমানে একটি বহুজাতিক সংস্থায় কর্মরত। লেখালিখি করতে এবং ঘুরে বেড়াতে ভালোবাসেন…

 

মরীচিকার ক্ষত, ক্ষতের মরীচিকা

বিষয়টি বেশ গোলমেলে,

গাছের পাতা খসার সন্ধিক্ষণের অনুভূতি, খানিক-

শুকিয়ে যাওয়া ক্ষত থেকে চর্মরি তোলার মত।

 

আমি, তুমি ও সক্কলে ক্ষত জমায়,

কুঁড়ে কুঁড়ে খাব ব’লে;

চুঁইয়ে পরা ক্ষত কখনও মহত্‌,

কখনও সৃষ্টিশীল।

 

কিছু, নিত্য প্রয়োজনীয়;

দিনের শেষে ক্লান্তির ঘুম,আমি সুখি।

বয়স্করা ভিড় করেন কোঁচকান ভুরুতে,

ফাটা ঠোঁটে, জ্বলে যাওয়া আঙ্গুলের বিস্ময়ে।

 

হঠাৎ ভাবনার উল্কা বৃষ্টিতে, কেউ কেউ রংমশাল।

ভাল লাগার গন্ধের আকস্মিক ঝাপটা; তুমি বেসামাল,

ভাবছ মরীচিকা, হাসছে ক্ষত,

অসহনীয়!

 

তবুও যত্নে রাখা ক্ষত আত্মহত্যা করেনা,

ধরা পরলে তুমিও অপরিচিত,

তোমার কোঁচকান ভুরুতে জমা হওয়া আমি

খুঁজি তোমার ফাটা ঠোঁটে, রক্তের ক্ষত।

 

ক্ষত-কথা
  • 0.00 / 5 5
0 votes, 0.00 avg. rating (0% score)

Comments

comments