আগের পর্ব – কাঠঠোকরা  

বহু দিনের বিরতির পর ফিরলাম সোয়ালোদের নিয়ে। এই পুঁচকে আর দ্রুতগতির পাখিগুলো আমার খুব প্রিয়। বেশিরভাগের কাঁচির মত লেজ। গরমকালে লেকের ধারে গেলে সবচেয়ে বেশি দেখা যায় এদের।

সবচেয়ে বেশি যাকে দেখা যায় সে হল Barn Swallow। বার্ন সোয়ালো আমাদের দেশেরও বেশ কমন একটি পাখি। মাঠে বা জলের ধারে নিয়মিত দেখা যায়। চকচকে কোবাল্ট ব্লু পিঠ, খয়েরী মুখ আর গলা, পেটের দিক হলদেটে বা সাদা। সবুজ মাঠের ওপর দিয়ে যখন দ্রুতগতিতে উড়ে চলে তখন দুর্দান্ত লাগে। এরকম উড়ন্ত অবস্থায় তাদের ছবি তোলার বহু চেষ্টা করেও সফল হইনি। আমার এই ক্যামেরায় সম্ভব হবেনা বলেই মনে হয়। ক্রমাগত ওড়ার ফাঁকে বিশ্রাম নেবার জন্য বসা অবস্থায় কয়েকটা ছবি দিলাম। এরা মাটি দিয়ে বাসা বানায়, অনেকসময় লোকের বাড়িতে, কখনো বা কোনো ব্রিজ বা ড্যামের গায়ে। একবার ভাগ্যক্রমে একদল বাচ্চা বার্ন সোয়ালোকে তাদের বাবা/মা ফড়িং ধরে এনে খাওয়াচ্ছে সেই দৃশ্য দেখতে পেয়েছিলাম। খুব ভাল কোয়ালিটির না হলেও সেই ছবি দেওয়া গেল।

Barn Swallow


Barn Swallow


Barn Swallows (young and adult)

আরেকটা সোয়ালো এখানে খুব দেখা যায়। তার নাম Northern Rough-winged Swallow। এরা চেহারায় অনেক সাদামাটা। কিন্তু মুখটায় একটা অদ্ভুত কিউটনেস আছে, কাছ থেকে দেখলে বোঝা যায়।

Northern Rough-winged Swallow


Northern Rough-winged Swallow

এছাড়া আরো তিনরকমের সোয়ালো দেখেছি লেকের ধারে। কিন্তু কাছ থেকে ছবি তুলতে পারিনি কখনো। দূর থেকে তোলা কিছু ছবি একসাথে দিলাম। এদের মধ্যে ধপধপে সাদা আর চকচকে নীল সবুজ ট্রী সোয়ালো সবচেয়ে সুন্দর দেখতে। ওই লেকের ধারের ড্যামের গায়ের প্রচুর ক্লিফ সোয়ালোর বাসা আছে, কিন্তু সে অঞ্চলে ছবি তোলা মানা, তাই তাদেরও কাছ থেকে ক্যামেরায় পাইনি কখনও, কিন্তু দেখেছি খুব কাছ থেকে।

Bank Swallow, Cliff Swallow and Tree Swallow

এই সমস্ত সোয়ালোর চেয়ে বেশ কিছুটা আকারে বেশ কিছুটা বড় Purple Martin। দূর থেকে দেখলে কালো মনে হবে, আসলে গাঢ় পার্পল রঙের। এমনিতে লোকালয়ে বিশেষ আসেনা। কিন্তু এদের জন্য স্পেশাল বার্ড হাউস বানালে তা এদের ভারি পছন্দ। সেরকমই এক পার্কে বার্ড হাউসের পাশে একবার দেখা পেয়েছিলাম একদল পার্পল মার্টিনের। এরা যেখানে থাকে, সাধারণত দলে দলে থাকে। বার্ড হাউসের প্রতি এদের বিশেষ আসক্তির কথা বিখ্যাত, শুনেছি এই অঞ্চলে এরা নাকি বার্ড হাউস ছাড়া অন্যরকম বাসা করতেই চায়না।

এছাড়াও নানারকম সোয়ালো এবং সুইফট আছে এই অঞ্চলে, কিন্তু কখনো তাদের দেখা পাইনি। ভবিষ্যতে তাদের দেখা পেলে তাদের কথা লেখা যাবে। পরের পর্বে বলব মেঠো পাখিদের কথা।
 

পরের পর্ব – মেঠো পাখি  

*** সমস্ত ছবি আমার Canon Powershot S3 IS দিয়ে তোলা।
 

নর্থ ক্যারোলিনার পাখি (১০) – সোয়ালো
  • 0.00 / 5 5
0 votes, 0.00 avg. rating (0% score)

Comments

comments