আগের পর্ব – ফ্লাইক্যাচার  

এই পর্বে বলব কিছু পুঁচকে সুরেলা পাখিদের কথা। প্রথমে বলি Warbler জাতীয় পাখিদের কথা। এরা এক ধরনের খুদে পাখি, সবচেয়ে বড় বৈশিষ্ট এদের গান গাওয়ার ক্ষমতা। সাধারণত এরা সকলেই আমিষাশী, অর্থাৎ পোকামাকড় খেয়ে বাঁচে। ওয়ার্বলাররা বেশিরভাগই পরিযায়ী পাখি। আমেরিকায় প্রচুর ধরনের ওয়ার্বলার থাকলেও নর্থ ক্যারোলিনায় গ্রীষ্ম বা শীত কাটায় তাদের মধ্যে হাতে গোনা কয়েকটি। তা হলে কি হবে, মাইগ্রেশনের সময় নর্থ ক্যারোলিনার উপর দিয়ে তারা উড়ে যায়। যাবার পথে জিরিয়ে নেয় একটু থেমে। এই সময়ই এদের দেখার সেরা সময়। অর্থাৎ বসন্ত এবং শরতের মাইগ্রেশনের সীজনে। এদের মাইগ্রেশনের নির্দিষ্ট পথ আছে। দুর্ভাগ্যবশত নর্থ ক্যারোলিনার যে অঞ্চলে আমি থাকি সেই অঞ্চলটি এদের মাইগ্রেশনের পথের ওপর সরাসরি পড়েনা। তাই এই অঞ্চলে দেখতে পাওয়া ওয়ার্বলারের সংখ্যা তুলনায় অনেক কম। ঠিকঠাক সময় বুঝে পাহাড় বা সমুদ্রের কাছে যেতে পারলে আরো অনেক অনেক ওয়ার্বলার দেখা যায়। 

Pine Warber (male)

সবচেয়ে কমন ওয়ার্বলার হল Pine Warbler। সারা বছরই দেখা যায় এদের। ছোট্ট হলদে বলের মত। পিঠের রঙ অলিভ সবুজ। পাইন গাছের ডগাতে থাকলেও পোকা খেতে অনেক সময়ই মাটির কাছাকাছি নেমে আসে, তখন এদের চোখে পড়ে। 

Pine Warbler (female)

Palm Warbler দেরও প্রায়ই মাটির কাছাকাছি বা নিচু ডালে দেখা যায়। বাকি ওয়ার্বলাররা বেশিরভাগই মগডালে বসে থাকে বলে সহজে দেখা যায়না। এদের দেখতে খুব সুন্দর। হলুদ মুখের ওপর খয়েরী টুপি। বুকেও হাল্কা হলদেটে আভা। সহজেই চেনা যায় দেখে। এদের মূলত দেখা যায় মাইগ্রেশনের সময়। 

Palm Warbler

Palm Warbler

মাইগ্রেশন সীজনে দেখতে পাওয়া আরো তিনটি ওয়ার্বলার হল Prothonotary Warbler, Black and white Warbler আর Connecticut Warbler। এদের মধ্যে প্রথমটির চেহারা রীতিমত চিত্তাকর্ষক। হলুদ আর ডানার কালোর অপূর্ব কম্বিনেশন। দুজনকেই দেখা যায় খুব অল্প দিনের জন্য। তবে মাঝেসাঝে প্রোথনোটারিরা বাসাও করে এই অঞ্চলে। জলের ওপর ঝুঁকে থাকা গাছের ডালের কোটর এদের বিশেষ প্রিয়। ব্ল্যাক অ্যান্ড হোয়াইট ওয়ার্বলাররা গাছের গা বেয়ে গোল করে ঘুরে ঘুরে ওপরে ওঠে আর সুযোগ বুঝে গাছের গা থেকে পোকা খুঁজে খায়। সেইরকম এক মুহূর্তের ছবি দেওয়া গেল।

Prothonotary Warbler

Prothonotary Warbler


Black and White Warbler

Connecticut Warbler

এছাড়া রয়েছে American Redstart আর Northern Parula। এদের গান বসন্ত বা গ্রীষ্মে প্রচুর শোনা গেলেও মগডালে বসে থাকার দরুণ দেখতে পাওয়া মুশকিল। বহু ঘোরাঘুরির পর শেষপর্যন্ত এদের দেখা পেয়েছি। অপূর্ব কালো আর কমলা রঙের রেডস্টার্ট আমার অত্যন্ত প্রিয় পাখিদের মধ্যে একটি। 
 

American Redstart (male)


American Redstart (male)


Northern Parula


Singing Northern Parula

Prairie Warbler আর Common Yellowthroat এ অঞ্চলের গ্রীষ্মকালীন বাসিন্দা। দুজনেরই বাস ঝোপেঝাড়ে। প্রেইরি ওয়ার্বলারের গান অদ্ভুত সুন্দর, সারেগামাপা করে নিচু থেকে উঁচুতে ওঠে ক্রমশ। কমন ইয়েলোথ্রোটের পুরুষপাখির ছবি দিলাম। হলুদ রঙের ওপর কালো আর ধূসর এর মুখোশ। পিঠের দিকটা অপেক্ষাকৃত সব্জেটে। মেয়ে পাখিগুলো পুরোটাই সব্জেটে। লিখতে গিয়ে একটা অদ্ভুত ব্যাপার খেয়াল করলাম, আমার দেওয়া ওয়ার্বলার গুলোর সবার মধ্যে হলুদ একটা প্রধান রঙ। তাই দেখে কেউ যেন ভেবে বসবেন না ওয়ার্বলাররা সবাই এরকম হয়। অন্য নানা রঙের ওয়ার্বলার আছে, যেগুলোকে হয় দেখিনি, অথবা দেখলেও ছবি তুলতে পারিনি।

Prairie Warbler

Common Yellowthroat (male)

শেষ আর দুটি ওয়ার্বলারের কথা বলব। প্রথমজন এখানের শীতকালীন বাসিন্দা। আকারে খুবই পুঁচকে। নাম Yellow Rumped Warbler। এদের রাম্প, অর্থাৎ পশ্চাদ্দেশ উজ্জ্বল হলুদ। বাকি দেহ সাদায় কালোয় মেশানো। ছেলে পাখিদের দেহে কালোর ভাগ বেশি। শীতে এরা প্রচুর সংখ্যায় এসে উপস্থিত হয়। তাই জঙ্গলে শীতকালীন ভ্রমণে বেরোলে এদের না দেখে উপায় নেই।

Yellow-rumped Warbler (male)

Yellow-rumped Warbler (female)

Yellow-rumped Warbler (female) (নামকরণের সার্থকতা)

অন্য জন হলেন Ovenbird। ওভেন এর মত দেখতে বাসা করে বলে এদের এই নামকরণ। দেখলে অনেকটা থ্রাশ জাতীয় পাখির সঙ্গে গুলিয়ে যেতে পারে। এরা থাকেও সোয়েইন্সন বা হারমিট থ্রাশের পছন্দের জঙ্গলেই। গায়ের রঙ ঐরকমই খাকি আর বুকে পেটে বাদামী ডট। কিন্তু ভাল করে দেখলে বোঝা যায় ঠোঁট থ্রাশের মত না, বরং ওয়ার্বলারের মত, আকারেও থ্রাশের চেয়ে ছোটো। সেইসঙ্গে মাথায় আছে দুটো ডোরা, আর তার মাঝে সুন্দর এক কমলা রঙ। এই ওয়ার্বলাররা এখানে গ্রীষ্মকালে ব্রীড করে ঘন জঙ্গলে। পাতার রঙের সঙ্গে মিশে থাকায় চট করে চোখে না পড়লেও এদের প্রচণ্ড জোরে "টীচার টীচার" (আসলে স্রেফ কিচিরমিচির) ডাক শুনে সহজেই খুঁজে পাওয়া যায়।



Ovenbird

আরেক রকম গায়ক পাখি হল Wren। ছোটোবেলায় রেন অ্যান্ড মার্টিনের বই পড়েছেন অনেকেই। দুটোই কিন্তু পাখির নাম। এ অঞ্চলে মূলত দু রকমের রেন দেখা যায়। Carolina Wren আর Winter Wren। দ্বিতীয়টির নাম শুনেই বোঝা যাচ্ছে শীতের পাখি, আর প্রথমটিকে দেখা যায় সারা বছর। ব্রীডিং সীজনে ক্যারোলিনা রেন এর অপূর্ব গান শুনতে পাবেন সারাক্ষণ। একটি ক্যারোলিনা রেনের গান গাওয়ার ছবি দিলাম। উইন্টার রেন তুলনায় বেসুরো। আকারে অনেক ছোটো, একদম বলের মত। ভীষণ ছটফটে। ক্যামেরা ফোকাস করতে না করতেই পালিয়ে যায় এদিক ওদিক। অতি কষ্টে একটার ছবি তুলেছিলাম একবার।

Carolina Wren


Carolina Wren

Singing Carolina Wren

Winter Wren

পরের পর্বে আরও একদল চঞ্চল পাখির দল। সঙ্গে থাকুন।

 

পরের পর্ব – ছোট্ট আর চঞ্চল  

*** সমস্ত ছবি আমার Canon Powershot S3 IS দিয়ে তোলা।

 

 

নর্থ ক্যারোলিনার পাখি (৫) – ছোট্ট আর সুরেলা
  • 0.00 / 5 5
0 votes, 0.00 avg. rating (0% score)

Comments

comments