চর্যাপদে আলোচনার সুস্থ পরিবেশ রক্ষার্থে নীচের নিয়মগুলো বর্তমান। সকল সদস্যকে এই নিয়মগুলো অবশ্যই মানতে হবে।

 

১) চর্যাপদ মুক্ত চিন্তা এবং বাকস্বাধীনতা সমর্থন করে। চর্যাপদের কোনও সদস্যের মতামত একান্তই তাঁর নিজস্ব, তা চর্যাপদ কর্তৃপক্ষের মতামত নয়।

২) চর্যাপদে বাংলা ফন্টে পোস্ট করা বাধ্যতামূলক, এবং বাংলা ফন্টে কমেন্ট করা বাঞ্ছনীয়।

৩) অশ্লীলতা, সাম্প্রদায়িকতা, ব্যক্তি আক্রমণ, এবং কোনও দেশ বা জাতির প্রতি বিদ্বেষপূর্ণ বক্তব্য চর্যাপদে গ্রহণযোগ্য নয়। যুক্তি দিয়ে যে কোনও বিষয়কে সমালোচনা করার অধিকার ব্লগার দের থাকবে। কোনও ব্যক্তি, দেশ, ধর্ম, জাতির ক্ষেত্রেও তা প্রযোজ্য। কিন্তু সেটা যেন সৌজন্য বজায় রেখে যুক্তি সহকারে করা হয়। আক্রমণাত্বক বা বিদ্বেষপূর্ণ মনে হলে (এ ব্যাপারে শেষ সিদ্ধান্ত ব্লগ অ্যাডমিনের) তা সহ্য করা হবেনা।

৪) চর্যাপদে একই ব্যক্তির একাধিক আইডি এবং স্প্যামিং গ্রহণযোগ্য নয়।

৫) চর্যাপদে কোনও সদস্যের প্রতিটি পোস্ট এবং মন্তব্যের সর্বসত্ব উক্ত সদস্য কর্তৃক সংরক্ষিত।

৬) চর্যাপদ কর্তৃপক্ষ যেকোনও সময়ে উপরোক্ত নিয়মাবলীর পরিবর্তন করতে পারে।
 

 

বারোয়ারী গল্প লেখার জন্য নিচের নিয়মগুলী মেনে চলতে হবে।
 

(১) একাধিক লেখক মিলে গল্পটি লেখা হবে। প্রথমে কেউ শুরু করবেন একটি অনুচ্ছেদ লিখে। তারপর দ্বিতীয় কেউ একজন গল্পটিকে এগিয়ে নিয়ে যাবেন আরও একটু। তারপর আরেকজন আরও একটু, এরকমভাবে লেখা এগোবে।
 

(২) কে কে অংশগ্রহণ করবেন সেটা প্রথমেই ঠিক করা হবে ফেসবুক গ্রুপে পোস্টের মাধ্যমে (বা প্রয়োজনে অন্যভাবে)। যাঁরা অংশ নেবেন তাঁদের সবাইকে এই নিয়মাবলীতে রাজি হতে হবে।

লেখাটা কি জাতের হবে (উদা – গোয়েন্দা গল্প) সেটা এই পর্যায়ে মোটামুটি ভাবে স্থির করতে হবে।
 

(৩) কে কোন পর্ব লিখবেন সেটা প্রথমে ফার্স্ট কাম ফার্স্ট সার্ভড হিসেবে ঠিক করার লক্ষ্য রাখা হবে। একটি পর্ব পোস্ট করার পর (প্রথম পর্বের ক্ষেত্রে ফেসবুকে লেখকদল নির্ধারিত হবার পর) যে কেউ কমেন্ট করে জানাতে পারেন তিনি পরের পর্ব লিখতে চান। প্রথম যিনি জানাবেন তাঁকে পরের পর্ব লিখতে দেওয়া হবে। কেউ এরকমও বলতে পারেন যে এই পর্বটা তিনি লিখতে চান না, তবে সেটা অনুরোধ মাত্র, সেটা রাখা নাও হতে পারে।

যদি ২৪ ঘন্টার মধ্যে কেউ এগিয়ে না আসেন, তাহলে লটারির মাধ্যমে অবশিষ্ট লেখকদের মধ্যে থেকে একজন কে বেছে নেওয়া হবে পরের পর্বের জন্য। এই লটারি অ্যাডমিনের তরফ থেকে করা হবে এবং তার রেজাল্ট সবাইকে বিশ্বাস করতে হবে।
 

(৪) একটি পর্ব লেখার জন্য লেখককে ৭দিন সময় দেওয়া হবে। কোনো কারণে তাঁর অসুবিধে হলে আরও ৭দিন পর্যন্ত বাড়তি সময় দেওয়া যেতে পারে।
 
(৫) একেকটি পর্ব চর্যাপদের পাতার ৫০ লাইন বা মোট ১০০০ শব্দ (যেটি বড়ো) এর মধ্যে শেষ করতে হবে। তবে একটু এদিক ওদিক হলে ক্ষতি নেই। প্রথম পর্বটির বিস্তারের জন্য অপেক্ষাকৃত একটু বড় সাইজ রাখা যেতে পারে।
এই শব্দের লিমিট প্রতিটি লেখায় পৃথক হতে পারে। সেটা লেখার শুরুতেই লেখকরা ঠিক করে নেবেন। এখানে যেটা দেওয়া হল সেটা ডিফল্ট লিমিট।
 

(৬) একজন লেখক একের বেশি পর্ব লিখতে পারেন। কিন্তু সবার অন্তত একবার করে লেখা হলে তবেই। সেক্ষেত্রে দুই বা তিন রাউন্ড হতে পারে। অর্থাৎ সবাই দুই বা তিনটি করে অংশ লিখলেন। কটা রাউন্ড হবে সেটা লেখা শুরুর সময়ই সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলা হবে।
 

(৭) নির্দিষ্ট সংখ্যক রাউন্ড শেষ হবার সাথে সাথে লেখা শেষ হওয়া বাঞ্ছনীয়। যদি কোনো কারণে সেটা সম্ভব না হয়, সেক্ষেত্রে আরও একটি (এবং একটিমাত্র) অতিরিক্ত পর্ব যোগ করা যেতে পারে। সেটা কে লিখবেন তা লটারি অথবা ভোটের মাধ্যমে ঠিক করা হবে।
 

(৮) লেখা শেষ হওয়ার আগে নামকরণ করা যাবে না। লেখা শেষ হওয়ার পরে সমস্ত লেখকদের অনুরোধ করা হবে। যে নামটি বেশি মনোনয়ন পাবে, সেটিকে রাখা হবে।
 

(৯) লেখা প্রকাশ হবে একটি পোস্টের মধ্যেই বারবার এডিট করে যোগ করে। বারোয়ারী গল্পের জন্য ব্লগে একটি অ্যাকাউন্ট থাকবে যার পাসওয়ার্ড লেখকদলকে দিয়ে দেওয়া হবে (প্রতি লেখায় পাসওয়ার্ড পাল্টাবে)। লেখাটি শেষ হওয়া পর্যন্ত এবং শেষ হবার পর এক সপ্তাহ তা প্রথম পাতায় পিন করা থাকবে। প্রতিটি পর্ব যোগ হবার সময় ম্যানুয়ালি ফেসবুক পেজে আপডেট করে দেওয়া হবে। সেই সঙ্গে সেই পর্বের লেখক একটি কমেন্ট করে দেবেন এই মর্মে যে নতুন পর্ব এসে গেছে।

পর্বটি যখন লেখক পোস্ট এডিট করে যোগ করবেন তখন পর্বের শেষে এক কোণে নিজের ব্লগ নামটি লিখে দেবেন, যাতে পরে কেবল লেখাটি পড়েই বোঝা যায় কে কোন পর্ব লিখেছেন।
লেখার বিভাগ হিসেবে "বারোয়ারী গল্প" দিতে হবে।

(১০) লেখার শুরুতে লেখকদল স্থির হবার পরে পাসওয়ার্ড বিতরণ এবং লটারির রেজাল্ট ইত্যাদি লেখকদলের মধ্যে ইমেইলে বা ফেসবুক গ্রুপ চ্যাটে করা হবে। এগুলি পাব্লিক হবেনা।