প্রথমবার বুঝলাম যবে, বেড়ে উঠছি আমি,
আমারি শিশুকালকে তাচ্ছিল্য করেছি সীমাহীন ;
তার আধো ডাক , আদুরে বায়নাগুলোকে ঠেসে ঢুকিয়ে আলমারিতে ,
দিয়েছি ঘুরিয়ে চাবি ।।

ঘুরেছে সময়-চাকা , হয়েছি আমিও একা ,
অনেক পরে
অনুজরূপে নিয়েছি ক্রমে মেনে ,
খানিক অপারগ হয়ে , বা হয়তো প্রয়োজনে ।।
আমার স্নেহ পেয়েছে আমার শৈশব – বহু অপেক্ষা, বহু উপেক্ষা শেষে ।।

আমার বাবা-মায়ের মধুরমিলনজাত আমার ছেলেবেলা ;
বড় মিষ্টি হাসি ওর মুখে, ওর চোখে জিজ্ঞাসা ভরা দ্যুতি
আমারি ছায়া দেখি দেয়াল জুড়ে, যখন আলোর সামনে দাঁড়িয়ে থাকে ‘ও’।।
এখন বুঝি , ফিরে-দেখায় গর্ব কতোটা গভীর ,
ভাবি শুধু , আহ – যদি এ গর্ব হতো লেহ্য-পেয় !

এখন ওকে চাঁদমামা পড়ে শোনাই দুপুরে,
পানকৌড়ির ঝপাস ঝাঁপ বিকেলের পুকুরে,
সন্ধেয় ওকে কোলে নিয়ে সেনাছাউনি পেরিয়ে,
ভাঙা পোস্টঅফিসের ওপাশের মাঠে গিয়ে শুনি ,শোনাই শেয়ালের ঐকতান ।।

ওকে আঁকড়ে রেখে, মানসচক্ষে দেখে ,
জীবন-মধু আঙ্গুলে নিয়ে চেখে ,
আবার করে আমার বেড়ে ওঠা ।।

ফের বেড়ে ওঠা
  • 5.00 / 5 5
1 vote, 5.00 avg. rating (91% score)

Comments

comments