যুদ্ধ মানেই তো – মৃত্যুর অবশ্যম্ভাবী তত্ত্ব। …যুদ্ধের তো অনেক রূপ । কিন্তু সব যুদ্ধেরই চুড়ান্ত বাস্তবতা তো এক। দর্শকের আসনে বসে তো মনে হতেই পারে , ‘ যুদ্ধ মানেই মৃত্যু ভয়’ । কোনটা ঠিক , সব যুদ্ধই সংগ্রাম , নাকি সব সংগ্রামই যুদ্ধ – আবার সব যুদ্ধ , সংগ্রাম হলেও সব সংগ্রাম যে যুদ্ধ হবেই তেমন কি কথা আছে ( উলটো ভাবেও বলা যায় ) । যদিও গা শিউরে ওঠার মত না , কিন্তু চাপা অব্যক্ত ফিসফিসানি তো আছেই । যেহেতু যুদ্ধ ( না ছায়া যুদ্ধ না , যুদ্ধ-যুদ্ধ খেলাও না ) , তাই বাস্তবতাও চূড়ান্ত এবং যেহেতু যুযুধান প্রতিপক্ষ দ্বয় ‘অসম’ তাই ফলাফল গটআপ প্রক্রিয়ালবদ্ধ না হয়েও পুর্ব নির্ধারিত ।
‘ ইনশাল্লা ( স্মাইলি ) …………অপেক্ষা বড়ই কঠিন বস্তু’ ।
ক। ‘নিজ মাতার কাছ হইতে মং ১৮০০ টাকা প্রাপ্ত হইয়া , শ্রীমান আবেশ দাশগুপ্ত নামক কিশোরটি যে উক্ত প্রাপ্ত অর্থ দিয়া সুগন্ধি সোমরসের বোতলই ক্রয় করিবে , ইহা কিশোরটির মাতা পূর্বেই জানিতেন’ …………এবং যে সমস্ত প্রাপ্তবয়স্ক সুধী ব্যাক্তি বর্গ এই তত্ত্বে বিশ্বাস করেন , তাহারা কদাপিও , নিজেদের আইনত উচিত বয়স হইবার পূর্বে সোমরস পান করেন নাই এবং ( থুক্কু) যদি কোন পরিস্থিতিতে পান করিয়াও থাকেন , সেক্ষেত্রে , উক্ত সোমরস ক্রয় করিবার নিমিত্ত অর্থ নিজেরা কায়িক শ্রম করিয়া উপার্জন করিতেন।
খ। হ্যাঁ এটা সত্যি যে সব শান্তির দূত পাখীই উড্ডয়নক্ষম , কিন্তু হিমালয়ের ঠাণ্ডা বাতাস অনুভবের সুযোগ সব পাখির হয় না ।
গ। আমি ও আমার এই দুই এককের মধ্যবর্তী ব্যবধান নির্ণীত হয় সম্পর্ক নামক স্কেল দ্বারা ।
ঘ । প্রাকৃতিক নিয়মেই হাঁচি জোর করে চেপে রাখা যায় না ( প্রতিবর্তী ক্রিয়া তাই ) ; ভেতর থেকে তৈরী হওয়া কান্না প্রদর্শন না করার প্রতিবর্তী দাওয়াই — জোর করে হাসা ।
ঙ। মহাশ্বেতা দেবী = ভারতে উপজাতি মৌলবাদ তত্ত্ব বা আন্দোলনের অন্যতম প্রবক্তা (ঐশী বিশ্লেষণ ) ।
চ। এমন কোন সংস্কৃত পুস্তক অবশ্যই আছে , যেখানে মানুষের গায়ের গন্ধ শুঁকে , তার জাতের শ্রেনিবিন্যাস ‘নিরূপণ-বিধি’ বিবৃত আছে ।
ছ। পুরুষের যেকোন অঙ্গের নাম ই পুরুষাঙ্গ ।
জ। সম্পর্ক সঙ্কেত আর এনট্রপি , মুদ্রার এপিঠ –ওপিঠ ।
ঝ। মনের সুন্দরতার কোন গানিতিক ব্যাখ্যা নেই । সুন্দর শরীরের , গানিতিক উপপাদ্য আছে । সোনালি অনুপাত । শরীর দিয়েই মনের সৌন্দর্যতা বুঝতে হয় । সৌন্দর্যে টইটম্বুর মন ওয়ালা কোন ব্যাক্তির হাসি সুন্দর হবেই —-ইহা চিরসত্য নহে ।
ঞ। লব আর কুশ – দুই ভাই । যীশু আর খ্রিষ্ট এরাও দুই ভাই এবং যমজ ।
শেষ ইষ্টিশন : ‘ আজ যদি জাতীয় লটারিতে কয়েক বিলিয়ন ফ্রঁ জিততাম , একটা প্রতিষ্ঠান বানাতাম – সেখানে যেসব মানুষ মরতে চান তাঁরা আসতেন , একটি সপ্তাহান্ত , সপ্তাহ বা মাস কাটাতেন , যতদূর সম্ভব – হয়ত মাদকের সাহায্যে জীবনকে উপভোগ করতেন , আর তারপর উধাও হয়ে যেতেন’ । —মিশেল ফুকো , ১৯৮৩ ।

বে-হিসেবি ভৈরবী সুর (…থমকে যাওয়ার আগে )
  • 0.00 / 5 5
0 votes, 0.00 avg. rating (0% score)

Comments

comments