পোস্টমডার্ন জটিল মনস্তাত্ত্বিক সমস্যার শিকার প্রায় আমরা সকলেই । অন গড বলছি  , পাগলাটে  গোছের ঘোলা চোখের কবিতা গুলো সেই যন্ত্রণারই সন্তান ।  সব কিছুই কেমন যেন গুলিয়ে যায় আজকাল । এক অভূতপূর্ব ঘূর্ণির মধ্যে লাট্টুর মতো  পাক খেয়ে চলা পলেস্তারা খসা বর্তমান  অচিরেই ডার্ক টোনের ফিউচার হবে , এ  কথা জেনে বুঝেও  আজকে হঠাৎ  দুটো  রসের কথা কইবার  ইচ্ছে জাগল । তাই গদ্য লেখককুলের   অনুমতি ছাড়াই  আসরে ঢুকে দু চার কথা লিখেই ফেলছি না হয় । সেসব কথা নেহাতই খারাপ লাগলে, চলনসই না মনে হলে  কাছের লোকজন  অন্যদিকে তাকিয়ে মুচকি হাসতে পারে , টুকটাক আওয়াজ – টাওয়াজও দেবে তল্লাটের  বখাটে বন্ধুরা , খুল্লমখুল্লা গাল তো আর পাড়বে না !  তাই  মাভৈঃ , এবেরে শুরু হই !

এই মাত্র ক'দিন আগেই আমার এক বান্ধবী কে বলছিলাম – দ্যাখো  , এই ওয়ার্ল্ড টা এতোটাই বোগাস ও ইউনিডিমেন্সনাল যে আজকের স্বার্থপর দুনিয়ায় কারও সাথে মিশ্তেই ভাল্লাগে না । সুবিধা দাও, তোষামোদি কর , হপ্তা শেষে মাটন -মুরগী খাওয়াও , একটু ভালো মদ – সিগারেট অফার কর – তবেই বন্ধুত্ব আছে , আর নয়তো জাস্ট নেই ।।

সে বান্ধবী খানিক হকচকিয়ে গিয়ে জিজ্ঞেস করে বসলে – কেন হল টা কি? আবার কে দুঃখ দিলো ? নাকি হালে কোনও জন্মদিনের পার্টিতে কেকের পিস টিস ছোট পড়েছে ?

আমি বললাম – নাহ , আমি পার্টিকে বরাবরই ডার্টি হিসেবেই ট্রিট করে এসেছি , এই এলাম – খুললাম – খেলাম – খুললাম – ঢাললাম এবং সেদিন ফিরলাম না – এই গতের ছক আমার টোটালি ডাউন মার্কেট মনে হয় । ব্যাপারটা সেটা না – এই দ্যাখো সরস্বতী পুজোতে এক বাড়িতে নেমন্তন্ন পেয়েছিলাম । [ আমার আবার একটা অভ্যেস আছে যে যেখানেই যাই ক্যামেরা টা গলায় ঝোলে ( মানে ' দাদা এটা জানা আছে' পোস্টার আর কি ! ) ] তো সে পার্টিতে সবাই তো আর চেনাজানা নয় ! স্বভাবতই কিছু লোকের সাথে আলাপ -পরিচিতি ইত্যাদি হল ( করতে হল ) । গোটা দিন একসাথে কাটানোয় কয়েকজন বেশখানিকটা বন্ধু হয়ে উঠলেন এবং যথারীতি তারা ক্যামেরাবন্দিও হলেন । যাই হোক , হই হুল্লোড় করে ফিরে এলাম একরাশ আনন্দ মনে নিয়ে । ফিরে আসার পরেই এলো এক ফোন-কল এবং তাতেই যতো পীড়ার সূত্রপাত । এক ভদ্রলোক (মোটামুটি ধোপদুরস্ত এবং একেবারে লো লেভেল খেউরবাজ বলে তাকে মনে হয়নি পার্টিতে দেখে ) আমার পূর্বপুরুষের বাপান্ত করে নাকি বলেছে যে – এইসব ( আমার মতো) লোকেদের জমায়েতে ডাকাই উচিত না , যারা বেছে বেছে শুধু পেয়ারের লোকেদেরই ছবি তোলে । আমি স্বপ্নেও ভাবিনি যে এটা একটা ইস্যু হতে পারে । এটা নিয়ে বিন্দুমাত্র অ্যাওয়ার ও ছিলাম না আমি ।

বান্ধবী বললে – বছর কয়েক বাদে নিজের বিয়ের দিনটার কথা চিন্তা করো ;সেদিনের ভিড় টাকে একটু খুঁটিয়ে চেনার চেষ্টা করো । যে মুখ গুলোকে আইডেনটিফাই করতে পারলে শুধু তাদের পুল টাকে মগজে রাখো । বাকিটা শিফট- ডিলিট করে দিও । বিয়ের দিন টা একটা জাংশন , ঠিক যেমন  প্রথম চাকরি জয়েন করে ফার্স্ট টাইম  স্ট্যাটাস পাল্টানোর  দিন টা ।

আমি বললাম – পাঠ নেওয়া সত্যিই অনেক বাকি পড়ে আছে ।।

মিশবো কাদের সাথে ?
  • 3.75 / 5 5
4 votes, 3.75 avg. rating (76% score)

Comments

comments