শক্তিপদ, বাড়ী আছো?

শক্তিপদ বলে কেউ বাড়ী আছে নাকি খোকা? আর বলো কেন, যে দিকে তাকাও সেদিকে হয় জিনিস, নয় শক্তি! বিশ্বেস না হয় নিজের দিকে দেখো, ওই যে হাতে টানা ফোনটা নিয়ে আঙুল টেনে যাচ্ছো, ওগুলো কি? আঙুল, ফোনের পর্দা, তোমার মা যিনি এই মাত্তর তোমায় ঠেঙাতে উপরে উঠে আসছেন তুমি সাড়া দিচ্ছো না বলে, তোমার ঘরের মেঝে, দেয়াল, সব এমনকি এই গ্রহ, এ সব জিনিস ছাড়া আর কী বলতে পারো? আর ওই যে তোমার রদ্দিমার্কা ফোনের ব্যাটারি গরম হয়ে তাপ ছাড়ছে, এই যে লেখাটা পড়ছো আর জ্ঞান দিচ্ছি বলে গাল পাড়ছো, এগুলো থেকে যে আলো ছাড়ছে বলে দেখছো, এগুলো শক্তির বিভিন্ন রূপ ছাড়া আর কী বলতে পারো?

শক্তিপদ এসব হিসেবের মধ্যে আসে না! সত্যি কথা বলতে কি, ও আসলে আধা শক্তি আধা পদার্থ বা পদ, তাই ওর নাম রেখেছিলাম “শক্তিপদ”। পন্ডিতেরা অবিশ্যি ওদেরকে পোলারিটন বলে ডাকেন, ও কি, এই অব্দি শুনে ভাবছো বুঝি আমি চাঁদা চাইবো? না না, দাঁড়াও, তোমায় একটু সিম্পিল করে বলি। রোসো, হ্যাঁ, পোলারিটন অনেক রকমের আছে বটে, তবে আমি প্রথমে তোমার ওই গিটারটা একটু বাজাই দাও!

ঝ্যাং! এই যে শব্দটা করলাম এটা কেন হলো বলো তো! কি বললে, তাও জানো না! আরে এই তো গিটারের এই আগার খুঁটি আর পাছার খুঁটি এ দুয়ের ভেতরে টান টান করে বাঁধা তারটাকে একটু টেনে ছেড়ে দিলাম, আর ওম্নি সে তারে ঢেউ খেলে বাতাসে এক জব্বর ঘাই মারলো, তুমি শুনলে, ঝ্যাং! এবার আমি গোটা ব্যাপারটাকে স্লো মোশানে নিয়ে যাচ্ছি, আরে চিন্তা নেই, আমি এটা তোমাদের সিনেমার ফাইট দেখে শিখেছি, এই দেখো, তারটা এই উঠলো, এই নামলো, ঢেউয়ের এই মাথা আর এই হলো পা, কেমন, তালে পাশাপাশি এই যে দুটো ঢেউয়ের মাথা, ওদের ভেতর যতটা ফাঁক, তার নাম তরঙ্গদৈর্ঘ্য। সব রকমের শক্তিই এইরকম ঢেউয়ের আকারে ছোটে, তাই আলোরও এমনি ঢেউ হয়, আর সে ঢেউয়েরও হয় তরঙ্গদৈর্ঘ্য।

আহা, চুল খাড়া হয়ে যাচ্ছে যে রাগে, এসো, ভজার সেলুনে যাই, খানিক চুল না ছাঁটলে তোমার মাথায় শক্তিপদর গপ্পোটা ঢোকাতে পারবো না যে। এই তো বসো দেখি এই সিটে, কী সুন্দর সামনে পেছনে আয়না, কত প্রতিবিম্ব তৈরী হয়েছে তোমার বিটকেলে মাথাটার! সামনের দিক পেছনের দিক সব কেন দেখতে পাচ্ছো বলতো? আরে আলোর ঢেউ এ দুটো আয়নায় বারবার ধাক্কা খেয়ে ফিরে আসছে আবার ধাক্কা খাচ্ছে, যাকে তোমরা বলো প্রতিফলন আর কি। তোমারো প্রতিবিম্ব তাই আয়নায় যে কতবার তৈরী হচ্ছে তার ইয়ত্তা নেই।

বিজ্ঞানীরা ঠিক এইরকম খাড়া দুটো আয়নার মাঝে আলোর ঢেউ রেখে আশ্চর্য সব বিষয় দেখেছেন। তবে সে আয়না তোমার ভজার সেলুনের এরকম গাব্দা আয়না নয়। পন্ডিতেরা বলেন, একটা গোটা ঢেউ তৈরী হয় একবার উঠে তারপর নেমে। সেই গোটা একপিস আলোর ঢেউয়ের আবার আদ্দেক করলে যা হয়, ঐটুকু ছোটো অংশকে তাঁরা আটকেছেন দুই আয়নার মাঝে, যাদের ইনজিরিতে বলে অপটিক্যাল রেজোনেটর, যেন ঠিক গিটারের ওই আগার আর পাছার খুঁটি! যেহেতু ঐটুকু অংশ মাত্তর 1 মাইক্রোমিটার মতো, সেহেতু এই আয়নাদুটোকে বিজ্ঞানীরা ছোটো করে বলেন, মাইক্রোরেজোনেটর।

কি বললে? এ সবের মধ্যে শক্তিপদ কই? আরে ঐ তো, ঐ দুটো মাইক্রোরেজোনেটরের মাঝে তৈরী হবে শক্তিপদ! তার জন্য আয়নার মাঝে একরকমের কুয়ো খুঁড়ে রাখতে হবে বাপু, জলের নয়, ইলেকট্রনের! যে কোন জিনিসেই গিজগিজ করছে ইলেকট্রন, অথচ সহজে জিনিস থেকে তার বেরনোর জোর নেই, যতক্ষণ না বাইরে থেকে কেউ শক্তির দড়ি টেনে বের করে দিচ্ছে। কাজেই সব জিনিসই আসলে যেন ইলেকট্রনের কুয়ো। না না তাই বলে এই তোমার মাস্টারমশাইয়ের মতো গোব্দাপারা জিনিসকে ঐ মাইক্রোরেজোনেটরের মাঝে রাখলে হবে না! বিজ্ঞানীরা ওখানে রাখেন—মাত্তর এক পরমাণু পুরু একরকম জিনিস! এর মধ্যে অবশ্যই ইলেকট্রন আছে, কিন্তু জিনিসটা এমন যে সে ইলেকট্রনগুলো আলো ফেললে তার থেকে শক্তি নিয়ে হাওয়া খেতে বাইরে বেরিয়ে পড়ে।
এসব জিনিস হলো অর্ধপরিবাহী বা সেমিকন্ডাক্টর, ইস্পেশাল অবস্থা না হলে, যেমন আলো ফালো না খাওয়ালে, এনারা ইলেকট্রনগুলোকে কুয়ো থেকে বার হতে দিতে চান না। এখানে এইসব সেমিকন্ডাক্টরগুলো কোয়ান্টাম কুয়ো হিসেবে কাজ করে।

সেই কুয়োতে যেমন ব্যাঙ ছিলো তার মায়ের কাছে, কোয়ান্টাম কুয়োতে তেমনি ইলেকট্রনগুলো যে যার নিজের জায়গায় আটকে থাকে এমনি সময়। জায়গাগুলো ইলেকট্রনদের মায়ের মতো আটকে রেখেছে। গোল বাধলো যখন আলোর ঢেউ এসে পড়লো ওই কুয়োতে। বিজ্ঞানীরা ছোট্টো এক পিস আলোর ঢেউ ফেললেন দুই মাইক্রোরেজোনেটরের মাঝে, কোয়ান্টাম কুয়োর উপর। ব্যস্! ইলেকট্রনগুলো একটু ঢেউয়ের ধাক্কাতে নড়ে চড়ে উঠে পালালো মায়ের কোল থেকে, হাওয়া খেতে বেরিয়ে গেলো। ইলেকট্রনের অভাবে কোল খাঁ খাঁ করতে থাকে আর বেরিয়ে যাওয়া ইলেকট্রন গুলোকে ডাকে আয় আয়, বেশিদূরে যাস নে। কোলের ডাক এড়াবে ইলেকট্রনদের সে সাধ্যি নেই! সত্যিই তো, পন্ডিতেরা ছোট্টো একটু ঢেউ পাঠিয়েছে, সেটা নিয়ে আর কদ্দুর যাবে ইলেকট্রন! ফাঁকা কোলের ভিতর ইলেকট্রনেরা আবার ঝাঁপিয়ে পড়ার আগে একরকম অদ্ভূত অবস্থার সৃষ্টি হয়। কোলটাকে ঘিরে কিছুক্ষণের জন্য ইলেকট্রনগুলো গোল গোল পাক খায়, ভাবটা এমন, কী মজা, মায়ের কাছে ফিরে যাই, ফিরে যাই! এইরকম অবস্থাটার সাথে পরমাণুর গঠনের একটা মিল পাওয়া যাচ্ছে কি? মানে নিউক্লিয়াসকে ঘিরে যেমন ইলেকট্রন ঘোরে পরমাণুতে, তেমনি এখানে নিজেরি ফেলে আসা জায়গা ঘিরে ঘুরছে ইলেকট্রন। পন্ডিতেরা বললেন, এই অবস্থাটাই একরকমের ছদ্মবেশী কণা, নাম দিলেন, এক্সাইটন।

আহা, আরেকটু ধৈর্য্য ধরতে পারবে না বুঝি? এক্সাইটন বেশীক্ষণ তো বেঁচে থাকে না, কারণ ইলেকট্রনরা তারপরে মায়ের কোলে গিয়ে চুপটি করে বসে, কিন্তু তার আগে যে আলোর ঢেউটা খেয়ে বাইরে বেরিয়ে গেছিলো, সেটাকে বমি করে বাইরে বার করে দিতেই হয়! কিন্তু বেরিয়েই বা আলোর ঢেউ যায় কোথায়! বিজ্ঞানীরা এমন এক কায়দা করে রেখেছেন যে সে ঢেউ কেবলি ঘুরপাক খায় দুই আয়নার মতো মাইক্রোরেজোনেটরের মাঝে। আর কুয়োটাকেও এমনি ভাবে বসানো মাইক্রোরেজোনেটরের মাঝে যে তার ইলেকট্রনগুলোকে ফের ঐ ঢেউ গিলতে হয়। কাজেই, আবার সেই এক্সাইটন জন্মায়, আবার সে বমি করে আলোর ঢেউ বার করে দেয়, আবার সে ঢেউ এক্সাইটন বানায়! কেবলি যখন এইরকম ঢেউ আর এক্সাইটন একে অন্যকে তৈরী করেই চলে তখন যে অবস্থা হয়, সেটা আধা পদার্থ আধা শক্তি, আধা কণা, আধা ঢেউ! কাজেই তাকে “শক্তিপদ” না বলে আর জো কি! বিজ্ঞানীদের মতে, এটাও একরকমের ছদ্মবেশী কণা, এর নাম পোলারিটন।
যে সব কিম্ভূত স্বভাব এই সব ছদ্মবেশী কণাদের তা একদিনে শুনলে তোমার হাত থেকে টানা ফোনটা পড়ে যেতে পারে, তাই আপাতত বলছি না।

কি বললে? তোমার ভালো নাম শক্তিপদ? এঃ হেঃ, আগে বলতে হয়! শুদুমুদু এতো বকে মরলুম! এই নাও তোমার চিঠি, ঠিকানাটা এটাই তো https://www.google.co.in/url?sa=t&source=web&rct=j&url=https://m.youtube.com/watch%3Fv%3DsWmvZ0IGrsU&ved=0ahUKEwiIodvq74_cAhWDTX0KHeqYCAAQo7QBCCQwAA&usg=AOvVaw1iXQyYV_3Z3HgQgFom3opn

*********
© শ্রুতিসৌরভ বন্দ্যোপাধ্যায়

শক্তিপদ, বাড়ী আছো?
  • 0.00 / 5 5
0 votes, 0.00 avg. rating (0% score)

Comments

comments