১. সাইটে রেজিস্টার এবং লগ ইন

ক।রেজিস্টার বাঁ দিকের সাইডবারের উপরদিকে রেজিস্টারের অপশন ("নিবন্ধন করুন”) পাবেন। ইউসারনেম সাবধানে বাছুন, কারণ এটা আর পাল্টানো যায়না।পাসওয়ার্ড পরে যেকোনো সময় পাল্টানো যায়। নিজের সুরক্ষার জন্য শক্তিশালী পাসওয়ার্ড বাছুন। কোন কারণে সমস্যা হলে এই পেজে গিয়ে রেজিস্টার করতে পারেন।

খ।লগ ইন রেজিস্টার করা হয়ে গেলে ওই একই জায়গা থেকে লগ-ইন করার অপশন পাবেন। কোন কারণে সমস্যা হলে এই পেজে গিয়ে লগ-ইন করতে পারেন। একবার লগ ইন করলে বাঁদিকের সাইডবারে লগ আউট (“প্রস্থান") করার অপশন পাবেন।

২. আপনার ড্যাশবোর্ড বা প্রশাসকের পাতা

বাঁ দিকের সাইডবারেই "প্রশাসকের পাতা" লিঙ্কটি পাবেন। এই লিঙ্কটি আপনাকে নিয়ে যাবে আপনার ড্যাশবোর্ডে। এই পাতার থেকেই আপনি চর্যাপদের সমস্ত ধরনের অপশন পাবেন। নতুন পোস্ট থেকে শুরু করে নিজের প্রোফাইল এডিট করা, সবরকম কাজই করতেন পারবেন ড্যাশবোর্ড থেকে।

কোন কারণে সমস্যা হলে এই লিঙ্কে ক্লিক করে ড্যাশবোর্ডে যেতে পারেন।

৩. আপনার প্রোফাইল কিভাবে এডিট করবেন

বাঁদিকের সাইডবারেই নিজের প্রোফাইলে যাওয়ার লিঙ্ক পাবেন। একই জিনিস ড্যাশবোর্ডে বাঁ দিকেও পাবেন। "পরিচিতি" নামের লিঙ্কটিই প্রোফাইল পেজের লিঙ্ক।
প্রোফাইল পেজের বেশিরভাগ অপশনই সহজবোধ্য। উপরের "ব্যক্তিগত অপশনসমূহ" যেমন আছে সেরকম রাখাই ভাল। "নাম" এবং "যোগাযোগ" এর ফিল্ডগুলি নিজের মত করে ভর্তি করে নিন। এর মধ্যে যেগুলি নিয়ে সংশয় থাকতে পারে সেগুলি নিচে দেওয়া হল। আর হ্যাঁ, প্রোফাইল এডিট করার পর সেভ করতে, অর্থাৎ নিচের "প্রোফাইল হালনাগাদ করুন" বাটনে ক্লিক করতে ভুলবেন না।

৪. নিজের ইউসারনেম এবং ডাকনাম এর মধ্যে পার্থক্য

ইউসারনেম এক এবং অদ্বিতীয়, এটি পাল্টানো যায়না। এটির সাহায্যে সাইট আপনাকে চেনে এবং এটি ব্যবহার করেই আপনি লগ ইন করেন। কিন্তু তার মানে এই নয় যে এই নামটিতেই বাকি ব্লগাররা আপনাকে চিনবেন। বরং সেটা বাঞ্ছনীয় নয়। এর জন্য আছে ডাকনামের ব্যবস্থা।"ডাকনাম" ফিল্ডে সেই নামটি দিন যে নামে সাইটের বাকি সমস্ত সদস্যের কাছে আপনি পরিচিত হতে চান। উদাহরণস্বরূপ, অ্যাডমিনের ক্ষেত্রে এই নাম হল "পরিচালক"। এরপর "সবাই যে নাম দেখবে" অপশন থেকে আপনার ডাকনামটি সিলেক্ট করে দিন। এখানে আপনি ইউসারনেম বা নিজের আসল নাম বা পদবী দিয়েও সবার কাছে পরিচিত হতে পারেন, কিন্তু অবশ্যই এটা নিশ্চিত করুন যেন "সবাই যে নাম দেখবে" ফিল্ড এর নামটি বাংলা হরফে থাকে।

৫. “সবাই যে নাম দেখবে” – এটি বাংলা ফন্টে দিন দয়া করে

এটা আমার সাইটের নীতি যে বাংলা সাইটে সমস্ত ব্লগার নিজেদের নাম বাংলা হরফে লিখবেন। তাই অবশ্যই "সবাই যে নাম দেখবে" ফিল্ডটি বাংলা ফন্টে দিন।এটা না করলে আমরা বাধ্য হব আপনার এই নামটি পাল্টে বাংলা ফন্টে করে দিতে।

৬. “ওয়েবসাইট” ফিল্ড ব্যবহার করে নিজের নামের সাথে নিজের অথর আর্কাইভকে হাইপারলিঙ্ক করুন

আপনার সমস্ত পোস্ট আপনার অথর আর্কাইভে থাকবে। এই অথর আর্কাইভের লিঙ্ক আপনার প্রোফাইলের ওয়েবসাইট ফিল্ডে বসিয়ে দিন। তাহলে আপনার প্রতিটি মন্তব্যের সাথে আপনার যে নাম প্রদর্শন করা হচ্ছে তার সাথে এই লিংক যুক্ত থাকবে। ফলে কারও আপনার কমেন্ট দেখে আপনার বাকি লেখাগুলোও পড়ে দেখার ইচ্ছা হলে সহজেই ক্লিক করে আপনার অথর আর্কাইভে চলে যেতে পারবেন।আপনার কিছু লেখা হয়ত আপনি প্রথম পাতায় প্রকাশ নাও করতে পারেন। সেক্ষেত্রে সেগুলো আপনার অথর আর্কাইভে থাকবে। ব্লগাররা সহজেই আপনার আর্কাইভে গিয়ে সেই সব লেখাও পড়তে পারবেন। প্রত্যেক ইউসারকে অনুরোধ করা হচ্ছে এই ব্যবস্থা করে নিতে।
নিজের অথর আর্কাইভের লিঙ্ক কিকরে পাবেন? আপনার যেকোনো পোস্টে আপনার নাম যেখানে লেখা রয়েছে তার ওপর ক্লিক করলেই আপনার অথর আর্কাইভে পৌঁছে যাবেন। যেমন পরিচালকের ক্ষেত্রে লিংকটা হল

http://chorjapod.com/author/admin/

৭. অ্যাভাটার বা ছবি কি করে লাগাবেন

আপনি যদি নিজের নামের পাশের থাম্বনেলটিতে নিজের পছন্দমত ছবি, অর্থাৎ অ্যাভাটার লাগাতে চান তাহলে গ্রাভাটার ব্যবহার করুন। ওখানে ইমেইল (যেটা চর্যাপদে ব্যবহার করা হয়েছে) দিয়ে সেটার জন্য ছবি সিলেক্ট করে দিলে যেকোনও ওয়ার্ডপ্রেস সাইটে ওই ছবি দেখাবে। এটা সমস্ত ইউসারকে করে নিতে অনুরোধ করা হচ্ছে। না করলে সিস্টেম জেনারেটেড র‍্যান্ডম অ্যাভাটার দেখানো হবে আপনার নামের পাশে।

৮. কিভাবে নতুন পোস্ট করবেন

নতুন পোস্ট করতে হলে ড্যাশবোর্ডে যান। বাঁ দিকে "প্রকাশনাসমূহ"-এর মধ্যে "আরো একটি"তে ক্লিক করলে নতুন পোস্ট করার এডিটর টি পাবেন। এছাড়া ড্যাশবোর্ডের উপর দিকে যে "+” চিহ্ন আছে সেখান থেকেও আপনি নতুন পোস্ট করতে পারেন। এই এডিটরে কিভাবে কাজ করবেন তা সম্পর্কে বিশদ জানতে ১৪ থেকে ২০ নম্বর আইটেম দেখুন।

৯. নিজের পুরোনো পোস্ট এডিট করা

নিজের যেকোনো পোস্ট এর একদম নিচে এডিট করার লিঙ্ক পাবেন। এডিট করলেও নতুন পোস্টের মত একই রকম এডিটর খুলে যাবে। সেখানে যা যা পরিবর্তন করার করে নিয়ে ডানদিকের "হালনাগাদ করুন" বাটনে ক্লিক করুন।

১০. অন্যের লেখা পড়ে কমেন্ট দেওয়া এবং পোস্টের রেটিং দেওয়া

ব্লগে শুধু পোস্ট করাই নয়, অন্যের লেখার ফীডব্যাক দেওয়াও সমান গুরুত্বপূর্ণ। যে যে লেখা পড়বেন তার ভাল-মন্দ সম্পর্কে মন্তব্য করুন। লগ ইন করা না থাকলে ফেসবুক অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করেও মন্তব্য করতে পারেন। চর্যাপদের অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করে মন্তব্য করতে গেলে লগড ইন থাকতে হবে। যদি মন্তব্য করার জায়গাটা ঠিক মত না আসে তাহলে পেজ রিফ্রেশ করুন, ঠিক হয়ে যাবে।
মন্তব্য করার মত কিছু না পেলে অন্তত পক্ষে রেটিং এর মাধ্যমে ফীডব্যাক দিন। পোস্টের নিচে দেখবেন পাঁচটি স্টার আছে। একটি লেখা আপনার কত ভাল লাগল সেটা বোঝাতে এই স্টার গুলি ব্যবহার করে রেটিং দিন (বলা বাহুল্য ১ স্টার মানে খুব বাজে আর ৫ স্টার মানে খুব ভাল)।  আপনার রেটিং অ্যাননিমাস থাকবে। অর্থাৎ কে রেটিং দিয়েছেন সেটা পোস্টের অথর জানতে পারবেন না। প্রত্যেক ইউসারকে বলা হচ্ছে কমেন্ট করতে না পারলেও অন্ততপক্ষে যে পোস্টগুলো পড়েছেন সেগুলোকে অবশ্যই রেটিং দিতে। একটা মাউস ক্লিক করা ছাড়া আর তো কোনো পরিশ্রম করতে হবে না। ফীডব্যাক দেওয়া একটি ব্লগের স্বাস্থ্যের পক্ষে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

1 2 3