ফেসবুক কিছুদিন আগেই নিজেকে মিডিয়া কোম্পানির মতো গড়ে তোলার কথা বলেছে। অনেক সংবাদমাধ্যমে এটাও দেখা যাচ্ছে, যে internally ফেসবুক নিজেকে একটি মিডিয়া কোম্পানিই ভাবে। কিন্তু ঠিক কি রকমের মিডিয়া কোম্পানি ফেসবুক?

এতদিন আমরা মিডিয়া বলতে জানতাম শুধুই খবরের কাগজ, টিভি। সেখানে আমরা রাজনীতি, অর্থনীতি, দেশ-বিদেশ, গান, খেলাধুলা, সিনেমা – এসবের খবরাখবর পেতাম। কিন্তু ফেসবুক সেইসব খবরকে ছাপিয়ে গেলো। ফেসবুক বললো, খবর প্রত্যেক মানুষের ঘরে তৈরী হচ্ছে। তারা সেসব ঘরোয়া খবরকে তাদের মিডিয়ার বিষয় বানাবে। ফলে আমরা এক নতুন মিডিয়া, এক অভিনব বোকাবাক্সের সন্ধান পেলাম। যা কিনা আমাদের চারপাশের জগতের হালহকিকত সমান গুরুত্ব দিয়ে দেখায়। মানে আমার বন্ধুর নতুন Himalayan Trip, বা পাশের পাড়ার সঞ্চিতার নতুন বিড়াল পোষার ছবি আর ওবামার কিউবা সফর – সবই সমান গুরুত্বপূর্ণ।

তবে ফেসবুক এসব করার জন্য যথেষ্ট সময় নিয়ে ভেবেছে এবং user-সংখ্যা বাড়িয়েছে। কারণ ফেসবুকের প্রধান আয়ের উৎস বিজ্ঞাপন। আর সেই বিজ্ঞাপন খুব টার্গেটেড বিজ্ঞাপন। মানে আমরা টিভি বা খবরের কাগজে সবাই মিলে যে একই বিজ্ঞাপন দেখি তা নয়। আপনার পাশের বাড়ির সুলেখা কাকিমা, আর আপনার মা একই বিজ্ঞাপন কিন্তু দেখবেন না ফেসবুকে, যদিও তারা খবরের কাগজ বা টিভিতে একই বিজ্ঞাপন দেখেন। আপনি যা পছন্দ করেন, সেই অনুযায়ী আপনাকে বিজ্ঞাপন দেখানো হবে। মানে সুলেখা কাকিমা যদি পি.সি.চন্দ্র-র গয়না পছন্দ করেন, আর আপনার মা সেনকো গোল্ড – তবে ওদের দুজনকে দুজনের পছন্দসই বিজ্ঞাপনই দেখানো হবে। আর আপনার পছন্দকে জানার জন্য শুধু সময় ব্যয় করলেই চলবে না, আপনার চারপাশের লোকজন, আপনার আশা-আকাঙ্খা জানাটাও খুব প্রয়োজন। আপনি কোন রাজনৈতিক মতবাদে বিশ্বাসী, তার থেকে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য হল আপনি আপনার বন্ধুর কোন্ ব্র্যান্ডের জামাকাপড় পছন্দ করছেন, বা আপনার বন্ধু কোন্ রেস্টুরেন্টে খেতে গেলে আপনি সেটায় আগ্রহী হচ্ছেন।

কিন্তু এসব করার মাঝেই, ফেসবুক যেটা করলো, সেটা একদিক থেকে খুব অভাবনীয়। ফেসবুক সবার জীবনকে সবার চোখের সামনে ঠেলে নিয়ে এলো। শুধু তাই নয়, সেই জীবন কতটা আকর্ষক তার মাপকাঠির একটা জায়গাও তৈরী করলো, “লাইক”-ব্যাপারটার মাধ্যমে। এভাবে ফেসবুক আমাদের চারপাশের সকলকে পারফর্মার বানিয়ে দিলো। যখনই আমরা কিছু post করছি ফেসবুকে, তখনই আমাদের অবচেতনে আমরা যেন কিছু একটা perform করার মানসিকতা নিয়ে করছি। আর সেই performance শুধু একলা নয়, তাতে আবার প্রতিযোগীও আছে। প্রতিযোগীরা হচ্ছেন আমাদের অবচেতনেই আমাদের চারপাশের স্বল্প-চেনা, বেশি-চেনা, অচেনা লোকজনেরা। প্রতিযোগিতার মাপকাঠি কিছু virtual number, যার পোশাকি নাম, লাইক, কমেন্ট, রিয়্যাকশন বা শেয়ার। এই performance-এর জগতে সর্বশেষ সংযোজন – Facebook Live. আপনি শুধু এমনি পারফর্মার নয়, প্রায় সরাসরি লাইভ পারফর্মার। যার আবার প্রতিক্রিয়াও real-time-এ পাওয়া যাচ্ছে।

যে কোনো পারফর্মারকে যদি জিজ্ঞেস করেন, তাহলেই দেখবেন, তারা বলবে যে তাদের performance anxiety বলে একটা ব্যাপার হয়। প্রত্যক্ষ্য অভিজ্ঞতা থেকে বলতে পারি, আপনি যাই করুন না কেন, আপনি যতই দক্ষ হন না কেন, আপনি যতই practice করুন না কেন, একটা উদ্বেগ আপনার থেকেই যাবে, perform করার জন্য। আর এই উদ্বেগ সরাসরি performance-গুলোতে আরো বেশি হয়। এবার ভেবে দেখুন, আমরা সকলেই এই ফেসবুক platform-এ যখন performer হয়ে যাচ্ছি, তখন এই উদ্বেগ আমাদের সকলের ভিতরে কাজ করছে। এই উদ্বেগ আরো অনেক বিষয়ের সাথে মিলে একটা হতাশা সৃষ্টি করে। দেখবেন অনেক performer অনেক সময় লম্বা ছুটিতে চলে যান, এই উদ্বেগ, এই সবসময়ের প্রত্যাশা থেকে পার পাওয়ার জন্য।

এই হতাশার আরো একটা কারণ অবশ্য আছে। আপনি যখন ফেসবুকে আপনার মতামত জানাচ্ছেন, তখন ততক্ষণ সবই ঠিক চলছে, যতক্ষণ বেশিরভাগ মানুষ আপনার পক্ষে। কিন্তু সময়বিশেষে সেটা থাকে না। এই ক্রমশ-বৃত্ত-ছোট-হয়ে-আসা-র যুগে, আমরা চাই, virtual দুনিয়া হলেও, মানুষ আমাদের কাছে থাকুন। কিন্তু ফেসবুকের এতো মানুষের এতো মতামতের ভিড়ে মাঝে মাঝেই আমরা সেই কাঙ্খিত সাহচর্যটা পাচ্ছি না। আমরা সেই কোনোখানে একলা হয়ে পড়ছি। হতাশার একটা উৎস সেটাও বটে। ফেসবুক কিন্তু এই হতাশার কথা আগাম আঁচই করেছিল।

তাই ফেসবুক চালু করেছে deactivation system. ফেসবুক বুঝেছে যে শুধু log out করেও মানুষ এই উদ্বেগ, একাকীত্ত্ব, হতাশা এবং এই চিরন্তন ভালো performance করে চলার প্রত্যাশা থেকে বের হতে পারছে না। তাদের দরকার হচ্ছে, আর একটা level of protection. সেই জন্যই এই deactivation-এর অবতারণা। আমার নিজের ফেসবুক বন্ধুতালিকার মধ্যে প্রায় ১০ শতাংশ এখন তাদের profile deactivate করে বসে আছেন। তবে অনেকে deactivation না করে, প্রায় passive user হয়ে যান ফেসবুকে। মানে তারা অন্যের performance-এ খুশি হন, মন্তব্য করেন। কিন্তু নিজের মধ্যে কোথাও একটা সুপ্ত ভয় জন্ম নেয়। তাই নিজে থেকে আর ফেসবুকে কিছু বলতে এগিয়ে আসেন না। তাদের অবচেতনে কোনো একটা কণ্ঠ্যস্বর সাবধানবাণী শোনায়, “যদি আমি সবার মতো perform না করতে পারি ! তার থেকে চুপ থাকাই শ্রেয়।” এই passive user-এর সংখ্যাও ক্রমবর্ধমান, তাই নিয়ে ফেসবুক চিন্তিতও বটে [১]।

বেশিরভাগ মানুষ যে ভুলটা করেন এই virtual দুনিয়াতে পা রেখে, সেটা হল, এটাকে এক অন্য দুনিয়া মনে করা। তারা মনে করেন, আমার চারপাশ আর ফেসবুক – দুটো আলাদা জগৎ। বাস্তব পৃথিবীর একটা separate, কিন্তু extension যে এই virtual medium-টা, সেটা অনেকেই ভাবেন না। আপনার পক্ষে কি সম্ভব, নিজের চারপাশের বাস্তবকে deactivate করে থাকা? তা যখন সম্ভব নয়, তখন আপনি এই virtual দুনিয়াকে কিভাবে “না” বলতে পারেন, খানিক সময়ের জন্য। কিন্তু মানুষ এটাই করছেন। আমাদের চারপাশের পারফর্মাররা এটাই করতে বাধ্য করাচ্ছেন আমাদের। কিন্তু এটা বোঝা খুব দরকার – বাস্তব জীবনেও যেমন আপনি পারফর্মার নন, তেমনি virtual-এও নন। আপনার পোস্টের লাইক, কমেন্টের সংখ্যা দিয়ে আপনার পারফর্মেন্স মাপার জায়গা তৈরী করলে – সেটা খুব বড় ভুল হয়ে যাবে। কারণ এই সংখ্যাগুলো একটা ব্যক্তি-মানুষকে মুছে ফেলে’ তাকে সংখ্যা দিয়ে ভাবতে চায়। আমরা যখন আলোয় থাকি, তখন অন্ধকারের মানুষগুলোকে আমরা স্রেফ সংখ্যায় বা স্ট্যাটিস্টিক্স-এ পরিণত করি। আশা রাখবো, আপনার “পারফর্মেন্স” মানুষকে তার ব্যক্তি-সত্ত্বাটুকুর মূল্য দেওয়ার পথে বাধা হয়ে দাঁড়াবে না।

[ফেসবুক নিয়ে একটা সিরিজ অফ লেখার এটা প্রথম কিস্তি - পরেরটা আসবে মে মাসে]

[১] https://www.theguardian.com/technology/2016/apr/19/facebook-users-sharing-less-personal-data-zuckerberg

ফেসবুক আর তার পারফর্মাররা
  • 0.00 / 5 5
0 votes, 0.00 avg. rating (0% score)

Comments

comments